ইসলামের অ্যাডভান্টেজ কী— জানেন?

ইসলাম মানব সম্প্রদায়ের জন্য পরিপূর্ণ ধর্ম। একজন মানুষের জীবনের প্রতিটা পদক্ষেপের দিক-নির্দেশনা বিবৃত আছে ইসলামে।

কিন্তু পৃথিবীর আর কোনো ধর্ম মানুষের জন্য পরিপূর্ণ সমাধান দেয়নি।

‘পরিপূর্ণ সমাধান’ দ্বারা আমরা কী বুঝি?

খৃস্টধর্মে আপনি পাবেন না— যুদ্ধবন্দীদের সঙ্গে কেমন আচরণ করা হবে! 
ইসলামে এর সমাধান রয়েছে। এমনকি যুদ্ধলব্ধ সম্পত্তি, নারী-শিশুদের প্রতি করণীয়, ইভেন বিধর্মীদের উপাসনালয়ের ব্যাপারেও করণীয় বিধান ইসলাম বর্ণনা করেছে নির্মোহভাবে।
রাষ্ট্রীয় প্রতিটি সাংবিধানিক কর্মকাণ্ডের সমাধান রয়েছে ইসলামের কাছে।

হিন্দুধর্মের কোথাও আপনি পাবেন না— প্রতিবেশীর সঙ্গে আপনার আচরণ কেমন হবে!
অথচ ইসলামের নবি সা. বলেছেন— যে পেটপুরে খেলো আর তার প্রতিবেশী অভুক্ত রইলো, সে আমার উম্মত নয়। প্রতিবেশীর অধিকারের ব্যাপারে ইসলামি আইন গ্রন্থগুলোতে স্বতন্ত্র অধ্যায় রচিত আছে। 
আছে প্রতিবেশী রাষ্ট্রের সঙ্গে আচরণগত সমস্যারও সমাধান।

বৌদ্ধধর্মে আপনি পাবেন না— স্বামীর ওপর স্ত্রীর অধিকার কতোটুকু।
ইসলাম স্ত্রীর অধিকার নিয়ে বিশদ আলোচনা করেছে। স্ত্রীর সম্পত্তি অধিকার, সামাজিক সম্মান, সম্ভ্রমের নিরাপত্তা, বিয়ের সম্মতি ও ডিভোর্সের অধিকার, কর্মক্ষেত্র, রাস্তায় চলাচল, স্ত্রীর ওপর স্বামীর অধিকার কতোটুকু— এসব বিষয় সবিস্তারে পুঙ্খানুপুঙ্খ বর্ণনা করা হয়েছে ইসলামি আইনে।

একারণেই বলা হয়— ইসলাম মানবমণ্ডলির পরিপূর্ণ সমাধান।

অধিকাংশ ধর্মই বর্ণনা করেছে কেবল অতীতদিনের কেচ্ছা কাহিনি, সদুপদেশ এবং উপাসনার বিভিন্ন তরিকা-পদ্ধতি। মানবজাতির জীবন পরিচালনার পূর্ণ ফ্রেমওয়ার্ক তৈরি করতে পারেনি অন্য আর কোনো ধর্মই। অধিকাংশ ধর্ম কেবল উপাসনালয়ের মধ্যেই সীমাবদ্ধ। সামগ্রিক মানবজীবনে এগুলোর কোনো হস্তক্ষেপ নেই।

ইসলামই একমাত্র ধর্ম যা মানবজাতির জন্ম থেকে মৃত্যু পর্যন্ত প্রতিটি অধ্যায় পরিচালনার সুষ্ঠু সমাধান দিয়েছে। এবং ইসলামের প্রতিটি সমাধানই কালোত্তীর্ণ, সর্বজনীন, পৃথিবীর সর্বত্র মানানসই।

—’আলয়্যাওমা আকমালতু লাকুম দিনাকুম, ওয়া আতমামতু আলায়কুম নি’মাতি, ওয়া রাদিতু লাকুমুল ইসলামা দি-না…’

একারণেই ইসলাম একালের ধর্ম যেমন, তেমনি ইসলাম সর্বকালের ধর্ম